একসময় ভুতুড়ে জাহাজ এখন বিলাসবহুল হোটেল

ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫ নভেম্বর ২০১৮ , ০৯:৫৬ এএম
একসময় ভুতুড়ে জাহাজ এখন বিলাসবহুল হোটেল

বিলাসবহুল জাহাজ হিসেবে নাম কুড়িয়েছে বিশাল জলযান কুইন মেরি। একসময় ভুতুড়ে জাহাজ হিসেবে খ্যাতি ছিল। এখন পুরো জাহাজটি বিশাল হোটেলে পরিণত হয়েছে।

সুবিশাল আটলান্টিক পাড়ি দেয়ার কাজে ব্যবহৃত জাহাজটি ১৯৩৬ সাল থেকে সমুদ্রের বুকে চলাচল শুরু করে। যাত্রা শুরুর অল্পদিনের মধ্যেই এটি ক্যালিফোর্নিয়ার সবচেয়ে বড় সমুদ্রপথে সবচেয়ে বেশি চলাচলের খেতাব কুড়ায়।

একদিকে যেমন বিশাল, আধুনিক ও বিলাসবহুল ছিল তেমনই এটি সেই সময়ের সবচেয়ে দ্রুতগামী জাহাজ ছিল। কুইন মেরি জাহাজটি মাত্র পাঁচদিনে সুবিশাল আটলান্টিক পাড়ি দিতে পারত।

যে জাহাজের প্রাপ্তির খাতায় এত অর্জন, সেটি কিন্তু আস্তে আস্তে প্রশ্নবিদ্ধ হতে শুরু করে। কারণ যাত্রা শুরুর একেবারে প্রথমদিন থেকেই জাহাজটিতে অদ্ভুত সব কাণ্ড ঘটতে শুরু করে।

যাত্রার প্রথম দিনেই জাহাজটির ক্রু-যাত্রীসহ প্রত্যেকেই এর ভেতরে রহস্যময় ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছেন বলে দাবি করেন। শুরুর দিকে তাদের কথা কেউ সেভাবে পাত্তা দেয়নি।

কুইন মেরির এই রহস্যময় আচরণের কথা সর্বপ্রথম বড় পরিসরে তুলে ধরেন কুইন মেরিতে চাকরিরত এক যুবক। কুইন মেরির ইঞ্জিন রুমে কয়লা সরবরাহ করা ছিল তার কাজ। তিনি জানান, জাহাজটির করিডরে একটি অস্পষ্ট ছায়াকে ব্যাগ পাইপ নামের বাঁশি বাজাতে বেশ কয়েকবার দেখা গেছে। এরপর অনেকেই নড়েচড়ে বসেন। সবার সতর্ক দৃষ্টি থাকে কুইন মেরির দিকে।

তাই বলে যাত্রা কিন্তু বন্ধ হয়নি। এছাড়া সুইমিংপুলে সাঁতার কাটার সময় অনেক যাত্রীই সাদা পোশাকধারী একজন নারী ও আট থেকে নয় বছরের একটি মেয়েকে ডেকের ওপর দিয়ে ভেসে ভেসে চলতে দেখেছেন। জাহাজটির কেবিনে প্রেতাত্মা দেখা ও রহস্যময় শব্দ শুনেছেন বলেও দাবি করেন অনেকেই।

কুইন মেরিকে ঘিরে এমন রহস্যময় প্রশ্ন আর অভিজ্ঞতার পাল্লা দিনের পর দিন কেবল ভারীই হতে থাকে। কেউ এগুলোর সঠিক ব্যাখ্যা দিতে পারেননি। দিনের পর দিন জাহাজ বিষয়ে এমন অভিজ্ঞতার পাল্লা ভারী হওয়ায় আস্তে আস্তে সারা বিশ্বেই কুইন মেরির এই রহসের গল্প ছড়িয়ে পড়ে। রহস্যময় এ জাহাজটি আসলে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকে কেন্দ্র করে তৈরি করা হয়েছিল।

পরবর্তী সময়ে একে সৈন্যদের জাহাজে রূপান্তরিত করা হয়েছিল। ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজ কিউরা কেরার সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে একবার কুইন মেরির প্রায় ৩০০ যাত্রীর প্রাণহানি ঘটে। ধারণা করা হয়, এসব মৃত ব্যক্তির আত্মাই জাহাজটিতে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

১৯৬৭ সালে দ্য সিটি অফ লং বিচ নামের এক প্রতিষ্ঠান কুইন মেরিকে কিনে নেয়। জাহাজটিকে একটি ভাসমান হোটেল হিসেবে গড়ে তোলা হয়। বর্তমানে এটি থ্রি স্টার হোটেল। এর রয়েছে ৩১৪টি বিলাসবহুল কক্ষ। আপনিও চাইলে এখানে রাত কাটাতে পারেন। প্রতি রাতের জন্য খরচ হবে ৪৯৯ ডলার, বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪২ হাজার টাকা।